জলঢাকায় ধর্ষণ মামলা তুলে নিতে আসামির হুমকি

জলঢাকায় ধর্ষণ মামলা তুলে নিতে আসামির হুমকি

 

ফরহাদ ইসলাম,জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর জলঢাকায় ধর্ষণ মামলা তুলে নিতে ধর্ষিতার পরিবারকে আসামী নজরুল ইসলাম হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ধর্ষিতার পরিবার। এ ঘটনায় আদালতে ৭ ধারা মামলা করেছেন বাদী নিলুফা বেগম। গত ২২ জুলাই দশম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন শৌলমারী ইউনিয়নের সিংড়িয়া বালারডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের ধর্ম বিষয়ক শিক্ষক নজরুল ইসলাম (৫২)। গত ২৩ জুলাই ওই ছাত্রীর মা নিলুফা বেগম বাদী হয়ে নজরুল ইসলামকে প্রধান ও অজ্ঞাত আরও দুইজনকে আসামি করে মঙ্গলবার রাতে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। জলঢাকা থানা পুলিশ অভিযোগটি আমলে নিয়ে মামলাটি রুজু করেন। মামলা নং ১৯ তারিখ ২৪/৭/১৯ইং। মামলা করার পর আসামী পক্ষ ক্ষিপ্ত হয়ে ধর্ষিতা ও তার পরিবারকে মামলা তুলে নিতে নানানভাবে হুমকি দিচ্ছেন বলে জানান মামলার বাদী ছাত্রীর মা নিলুফা বেগম। তিনি অভিযুক্ত নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন,‘‘মামলা দেওয়ার পর থেকে আমার মেয়েকে নানানভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে এবং আমাদেরকে ফাঁসাতে একটি মিথ্যা মামলা করেছে। তিনি আরও বলেন, তার হুমকির বিরুদ্ধে বাধ্য হয়ে নীলফামারী কোর্টে নিজেদের রক্ষায় একটি ৭ ধারার মামলা করেছি। এতদিনেও ধর্ষণ মামলার একজন আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় সাংবাদিকদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।’’ এ দিকে সোমবার সকালে সিংড়িয়া বালারডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় অভিযুক্ত শিক্ষক নজরুল ইসলাম গত দুই দিন থেকে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত। তার অনুপস্থিতির বিষয়ে জানতে চাইলে মুঠোফোনে প্রধান শিক্ষক নরেন্দ্র নাথ রায় জানান,‘‘গত রবিবার থেকে তিনি বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছেন।’’ আসামী গ্রেফতারের বিষয় জানতে চাইলে থানা অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন,‘‘ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেন।’’ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) বদরুদ্দোজা বলেন,‘‘ আসামি পলাতক থাকায় তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছে না।’’
উল্লেখ্য,২২ জুলাই সোমবার গভীর রাতে পৌরশহরের উত্তর কাজির এলাকার লুৎফর রহমানের মেয়ে জলঢাকা পাইলট সরকারী মডেল উচ্চ-বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রীর শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে একই এলাকার মৃত্যু মফিজ উদ্দিনের ছেলে শিক্ষক নজরুল ইসলাম ও তার দুই সহযোগি। এ সময় ছাত্রীর মা’র চিৎকার করলে অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম তার হাত-পা বেধে ছাত্রীটিকে মুখ বেধে পাশের রান্না ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে।

শেয়ার করুন