নোয়াখালীতে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার- ১

নোয়াখালীতে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার- ১

আলো রিপোর্ট

নোয়াখালীতে পূর্ব বিরোধের জেরে ধরে স্বামীকে মারধর করে সন্তানসহ ঘরের মধ্যে বেঁধে রেখে এক নারীকে (৪০) গণধর্ষণ এবং পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করার ঘটনায় বাসু ওরফে কুড়াল্যা বাসু নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনার পর ভিকটিম নারী ও তাঁর স্বামীকে উদ্ধার করে সোমবার দুপুরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত রবিবার দিবাগত গভীর রাতে নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলা চরজুবলী ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। পরে ভিকটিমের স্বামী সিএনজি ড্রাইভার সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে ৯ জনের বিরুদ্ধে চরজব্বর থানায় মামলা করেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নারী (৪০) অভিযোগ করেন, রবিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে একই এলাকার মোশারেফ, সালাউদ্দিন, সোহেলসহ ১০-১২ জন তাঁদের বাড়িতে এসে প্রথমে বসতঘর ভাংচুর করে। এরই এক পর্যায়ে তারা ঘরে ঢুকে তার স্বামীকে পিটিয়ে আহত করে। পরে স্বামী (৫০) ও স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে (১২) বেঁধে ফেলে এব ওই নারীকে টেনে-হিঁচড়ে ঘরের বাইরে নিয়ে দুর্বৃত্তরা তাঁকে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে এবং গণধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে তাঁরা তাঁকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করে। এসময় তিনি প্রাণে ভিক্ষা চাইলে তাঁরা তাঁকে মুমুর্ষূ অবস্থায় ফেলে চলে যায়। পরে আশেপাশের লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে। নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) বলেন, ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে এক নারী (৪০) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তাঁর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের দাগও রয়েছে। তাঁর স্বামীও একই হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। ভিকটিমের প্রাথমিক কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। পুলিশ সুপার ইলিয়াছ শরীফ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন ধর্ষনের ঘটনায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পুলিশ এজাহারভুক্ত একজনকে গ্রেফতার করেছে। এটা কোন রাজনৈতিক ঘটনা নয়। পূর্ব বিরোধের জের ধরে ঘটনাটি ঘটেছে বলে পুলিশ সুপার জানান। বলেন, বাকী আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

শেয়ার করুন