শিরোনাম

আজ বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩০ অপরাহ্


গ্রেফতার হলেন মিন্নি যে অপরাধে

গ্রেফতার হলেন মিন্নি যে অপরাধে

অনলাইন ডেস্ক :

বরগুনায় রিফাত শরীফ হত্যায় স্ত্রী মিন্নিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর রাতে গ্রেফতার করা হয়।বরগুনার বাসা থেকে মিন্নি ও তার বাবাকে নিয়ে যায় পুলিশ। পরে রাতে মিন্নিকে গ্রেফতার দেখানো হয়।এর আগে, বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যা মামলার বাদি নিহত রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফ ও মামলার প্রধান সাক্ষী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি পরস্পর দোষারোপ করে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

একই সময়ে বন্দুকযদ্ধে নিহত নয়ন বন্ডের মা শাহিদা বেগমও মিন্নিকে জড়িয়ে বিবৃতি দেওয়ায় রিফাত হত্যার ঘটনা ভিন্ন দিকে মোড় নেয়।পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন জানান, সকাল সাড়ে নয়টার পর তার বাসা থেকে তাকে থানায় নিয়ে আসা হয়। দিনভর জিজ্ঞাসাবাদে রিফাত হত্যায় তার জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এরপরই তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।এর আগে, সকালে এ মামলার ১ নম্বর সাক্ষী হিসেবে কথা বলার জন্য মিন্নিকে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে নেওয়া হয়। সঙ্গে তার বাবা-মাও ছিলেন।জানা যায়, গত ২৫ জুন বরগুনা শহরের কলেজ রোডে রিফাতকে (২৩) তার স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।হামলার ঘটনার একটি ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে শুরু হয় আলোচনা। সেখানে দেখা যায়, দুই যুবক রামদা হাতে রিফাতকে একের পর এক আঘাত করছে। তার স্ত্রী মিন্নি তাকে বাঁচানোর জন্য হামলাকারীদের ঠেকানোর চেষ্টা করছেন।

নিহত রিফাত শরীফ নিহত রিফাত শরীফ পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মিন্নি হামলাকারী সবাইকে চিনতে না পারার কথা জানালেও নয়ন বন্ড, রিফাত ফরাজী ও তার ভাই রিশান ফরাজীর নাম বলেন।রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ ওই তিনজনসহ ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা থানায় মামলা করেন। পরে তিনি মিন্নিকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদের দাবি জানান।দুলালের দাবি, মামলার ১ নম্বর আসামি নয়ন বন্ডের সঙ্গে মিন্নির বিয়ে হয়েছিল। রিফাতকে হত্যার ঘটনায় মিন্নি জড়িত ছিলেন। আহত রিফাতকে হাসপাতালে নেওয়ার সময় মিন্নি সঙ্গে যাননি।মিন্নির দাবি, নয়নের সঙ্গে তার বিয়ে হয়নি। জোর করে কাবিনে সই নেওয়া হয়েছিল।

শেয়ার করুন