দুর্নীতিমুক্ত রেলওয়ে গড়ে তুলতে কাজ করছি

দুর্নীতিমুক্ত রেলওয়ে গড়ে তুলতে কাজ করছি

রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, দুর্নীতিমুক্ত রেলওয়ে গড়ে তোলার জন্য আমরা প্রতিনিয়ত কাজ করছি, রেলের টিকিটিং ব্যবস্থায় কোটা পদ্ধতি সম্পূর্ণ বাদ দেওয়া হয়েছে। মধ্যস্বত্বভোগীরা যেন রেলের ভূমি দখলে না রাখতে পারে সে জন্য কাজ করা হচ্ছে। গত এক বছরে বর্তমান সরকারের রেলওয়ের সার্বিক উন্নয়ন ও সাফল্য নিয়ে মঙ্গলবার এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে রেলমন্ত্রী এ কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ৩৯ কিলোমিটার নতুন রেলপথ, ৩৭টি নতুন রেলসেতু, পাঁচটি নতুন স্টেশন বিল্ডিং এবং ২৬টি নতুন লেভেল ক্রসিং গেট নির্মাণ করা হয়েছে। এ সময়ে মোট আটটি আন্তনগর ট্রেন চালু করা হয়েছে। তিনটি রুট বর্ধিত করা হয়েছে। এক বছরে ১২৯টি রেল দুর্ঘটনা ঘটেছে জানিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, ১২৯টি দুর্ঘটনার মধ্যে তিনটি বড় দুর্ঘটনা। রেল দুর্ঘটনায় মোট ৩৯ জন নিহত হয়েছেন। ১৫৫ জন আহত হয়েছেন। এক বছরে রেলের উন্নয়নের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৮৬টি নতুন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২০১৯-২০ অর্থবছরে এডিপিতে বাংলাদেশের রেলওয়েতে ৩৩টি বিনিয়োগ প্রকল্প ও ৩টি কারিগরি সহায়তা প্রকল্পসহ মোট ৩৬টি উন্নয়ন প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত রেলের ৭৭টি প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। ফলে রেলপথ সম্প্রসারিত হয়েছে এবং রেলের যাত্রী সেবার মান বেড়েছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে যেসব প্রকল্প চলমান আছে, এর মধ্যে ১১৬২.৭৭ কিলোমিটার রেললাইন নতুনভাবে নির্মিত হবে বলেও জানান রেলমন্ত্রী। তিনি বলেন, এসব প্রকল্পের কাজ শেষ হলে ১৪৯টি লোকোমোটিভ, ৭০০টি যাত্রীবাহী ক্যারেজ, ১০০০টি ওয়াগন, ১২৫টি লাগেজ ভ্যান যুক্ত হবে। মন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ২০০৯ সালে আসার পর এই পর্যন্ত ৪০১ কিলোমিটার নতুন রেলপথ নির্মাণ করা হয়েছে। রেলের মোট ৬ হাজার একর জমি বেদখল হয়ে আছে। ১৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ২৫৯ দশমিক ৫৭ একর ভূমি অবৈধ দখল মুক্ত করা হয়েছে।

শেয়ার করুন