ফজিলত নামাজের

ফজিলত নামাজের

ইসলাম ডেস্ক

– মসজিদে নামাজে যাতায়াত ও চলাফেরার মাধ্যমে মর্যাদা বৃদ্ধি হয় এবং গোনাহ মাফ হয়।

– প্রতি পদে দশটি নেকি পাওয়া যায়।

– নামাজের জন্য বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর, ফিরে আসা পর্যন্ত সে নামাজিদের অন্তর্ভুক্ত থাকে।

– যে যত দূর থেকে নামাজের জন্য মসজিদে আসবে, সে তত বেশি উত্তম।

– নামাজের জন্য চলার প্রতি কদমে, দানসদকা করার সওয়াব পাবে।

– মসজিদের দিকে বেশি বেশি কদম পড়লে জিহাদের সওয়াব পাওয়া যাবে।

– নিয়মিত দিনে-রাতে মসজিদে যাতায়াত করলে, আল্লাহ তায়ালা জান্নাতে তার জন্য সম্মানের খাবার প্রস্তুত করেন।

– রাতের অন্ধকারে যারা মসজিদে গমন করেন, আল্লাহ তায়ালা তাদের জন্য কেয়ামতের দিন পূর্ণ নুরের ব্যবস্থা রেখেছেন।

– পবিত্রতা অর্জন করে নামাজের জন্য ঘর থেকে বের হলে, ইহরাম বেঁধে হজে যাওয়ার মতো সওয়াব পাবে।

– মসজিদে গমনকারী ব্যক্তি আল্লাহর জিম্মায় চলে যায়। আল্লাহ তায়ালা তাকে রিজিক দেন এবং তার জন্য তিনিই যথেষ্ট হয়ে যান।

– যে ব্যক্তির অন্তর মসজিদের সঙ্গে লটকানো থাকবে (অর্থাৎ নিয়মিত মসজিদে গিয়ে জামাতের সঙ্গে নামাজ আদায় করে এবং সর্বদা চিন্তায় থাকে যে, কখন নামাজের সময় হবে, আমি মসজিদে যাব), এমন ব্যক্তি কেয়ামতের দিন আল্লাহর আরশের ছায়াতলে স্থান পাবে।

– মসজিদে গমনের মাধ্যমে যে ব্যক্তি আল্লাহর সান্নিধ্যে যায়, আল্লাহ তায়ালা তাকে সম্মানিত করেন, ঈমান বৃদ্ধি করে দিয়ে, ইহসান করে, সওয়াব প্রদান করে এবং মর্যাদা বৃদ্ধি করে। 

শেয়ার করুন