ফুলছড়িতে ত্রান সামগ্রী তুলে দিলেন ডেপুটি স্পীকার এ্যাড.ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি

ফুলছড়িতে ত্রান সামগ্রী তুলে দিলেন ডেপুটি স্পীকার এ্যাড.ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি

 

গাইবান্ধা জেলা সংবাদদাতা ঃ
গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলার চরাঞ্চলে বন্যার পানিতে নেমে বানভাসীদের হাতে ত্রান সামগ্রী তুলে দিলেন ডেপুটি স্পীকার এ্যাড.ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি। এসময় জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার মো. ফজলে রাব্বি মিয়া এমপি বন্যার্তদের উদ্দেশ্যে বলেন, সরকার ধৈয্য ও সাহসিকতার সাথে বন্যা মোকাবেলা করছে। সরকারের ত্রাণ ভান্ডারে পর্যাপ্ত খাদ্য শস্য মজুদ রয়েছে। ত্রাণের কোন অভাব নেই। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সকলকে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হবে। তিনি বলেন, বন্যায় পানির উচ্চতা বেশী হওয়ার কারণে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ ও রাস্তাঘাট বিধস্ত হয়ে যাওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। তিনি বলেন, বন্যা পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলা ও ক্ষতিগ্রস্তদেরকে পুনর্বাসনেও সরকারিভাবে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আজ রোববার গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার হরিচন্ডি, সন্যাসীর চরসহ ব্রহ্মপুত্র ও যমুনা নদী বেষ্টিত বিভিন্ন চরাঞ্চলে পানিবন্দী লোকদের মাঝে ত্রাণ বিতরণকালে এ কথা বলেন।

ত্রাণ বিতরণকালে জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন, সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: জাহাঙ্গীর কবির, ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হালিম টলষ্টয়, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, ফুলছড়ি আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আব্দুল গফুর মন্ডল, যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলামসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

ডেপুটি স্পীকার মো. ফজলে রাব্বি মিয়া বন্যার্ত ২ হাজার পরিবারের প্রত্যেককে চাল, চিড়া, গুড়, স্যালাইন, বিশুদ্ধ পানি বোতলসহ ১০ আইটেমের ত্রাণ প্যাকেজ বিতরণ করা হয়। পরে ডেপুটি স্পীকার ও জেলা প্রশাসক ট্রলারযোগে ব্রহ্মপুত্র ও যমুনা নদী বেষ্টিত বিভিন্ন চরাঞ্চলে পানিবন্দী লোকদের খোঁজ খবর নেন এবং তাদের হাতে ত্রাণ পৌছে দেন।

শেয়ার করুন