ডিমলায় নারী ও কন্যা শিশু সুরক্ষা প্রকল্পের অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত

ডিমলায় নারী ও কন্যা শিশু সুরক্ষা প্রকল্পের অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত

জাহাঙ্গীর রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি ঃ নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় বে-সরকারী সংস্থা পল্লীশ্রী রি-কল-২০২১ প্রকল্পের আয়োজনে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ঢাকা এর সহায়তায় অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে নারী ও কন্যা শিশুর সুরক্ষা প্রকল্পের প্রকল্প লক্ষ্য বিষয়ে অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩-জুলাই) সকালে উপজেলা পরিষদ হলরুমে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। নারী ও কন্যা শিশুর সুরক্ষা প্রকল্পের উপজেলা সমন্বয়কারী মোছা: শামীমা পপি’র সঞ্চালনায় উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক-শিক্ষিকা, বিভিন্ন সেবাদান প্রতিষ্ঠানের প্রধান, বে-সরকারী এনজিও প্রতিনিধি, ইউপি সদস্য, ডাক্তার, আইনজীবী ও গণমাধ্যমকর্মীরা অংশ গ্রহণ করেন।

এ সময় প্রকল্পটির মূল লক্ষ্য বিষয়ে প্রজেক্টরের মাধ্যমে দেখানো হয়, নারী-পুরুষ বৈষম্য, নারীর প্রতিসহিংসতা এবং এলাকার বিভিন্ন স্তরে অবিচার বন্ধ করা সহ অধিকার বঞ্চিত, ভূমিহীন ও সমাজের বিভিন্ন স্তরের আর্থ-সামাজিক, সাংস্কৃতি রাজনৈতিক অসম অবস্থানের উন্নয়ন বিষয়ে তুলে ধরেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: নাজমুন নাহার মুনের সভাপতিত্বে অবহিতকরণ সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, পল্লীশ্রী রি-কল প্রকল্পের উপজেলা সমন্বয়কারী বাবু পুরান চন্দ্র বর্মন। সভায় উন্মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা: আয়শা সিদ্দীকা, উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসের ভেটেনারী সার্জন সাইদুর রহমান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল হালিম, উপজেলা সমবায় অফিসার আলমগীর জামান, আমার বাড়ি,আমার খামার প্রকল্পের উপজেলা সমন্বয়কারী ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক শাখা ব্যাবস্থাপক ইমরুল কায়েস খান, ডিমলা থানার সেকেন্ড অফিসার রাশেদুজ্জান রাশেদ, উপজেলা পরিচালন উন্নয়ন প্রকল্প সহায়ক বিভা রায়, ডিমলা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডি.আর.ইউ) এর সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক জাহাঙ্গীর রেজা প্রমুখ।

সভার সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার মুন বলেন, ইতোপূর্বে দেখেছি পল্লীশ্রী রি-কল প্রকল্প নামের একটি বে-সরকারী সংস্থা ডিমলা উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে অবহেলিত বেকার যুবতী নারীকে নারীর ক্ষমতায়নে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের জীবন মান উন্নয়নে ও কন্যা শিশুর বিষয়ে কাজ করে সুনাম অর্জন করেছে। ঠিক ওই ভাবে যদি নারী ও কন্যা শিশুর সুরক্ষা প্রকল্পটি সঠিকভাবে কাজ করে তাহলে সত্যিই এলাকার অবহেলিত মানুষজনেরও জীবন মান উন্নয়ন হবে।

শেয়ার করুন