ফলোআপ -নন্দীগ্রামে সাব রেজিষ্ট্রারের দূর্নীতির তদন্ত

ফলোআপ -নন্দীগ্রামে সাব রেজিষ্ট্রারের দূর্নীতির তদন্ত

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ-বগুড়ার নন্দীগ্রামে সাব-রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে অনিয়ম দূর্নীতির তদন্ত শেষ করা হয়েছে।সোমবার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ধুনট উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রার রিপন চন্দ্র মন্ডল এই তদন্ত করেন। গত ২ জুলাই নন্দীগ্রাম সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে উৎকোচ গ্রহণ বন্ধসহ সাব-রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ নন্দীগ্রাম বাসষ্ট্যান্ডে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এরপর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে আইনমন্ত্রী এবং জেলা প্রশাসক বরাবরে স্বারকলিপি প্রদান করে। এদিকে গত ১৮ জুলাই সাব-রেজিষ্ট্রার অফিসে দূর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বগুড়া আঞ্চলিক অফিসের একটি দল অভিযান চালিয়ে দূর্নীতির আলামত হিসেবে গুরুত্বপুর্ন বেশকিছু কাগজপত্র সংগ্রহ করেন। গতকাল সোমবার বেলা ১১ টায় তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ধুনট উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রার রিপন চন্দ্র মন্ডল তদন্তে আসেন। তদন্তে অভিযোগকারীসহ সুধিজনদের বক্তব্য শুনেছেন। তবে তদন্তকর্মকর্তা পক্ষপাতিত্ত করায় অভিযোগকারীরা তদন্ত কমিটিকে প্রত্যাখান করেছে। অভিযোগকারী সানোয়ার হোসেন ও তারেক মাহমুদ ডিউ বলেন, সুনিদিষ্ট ভাবে সাব-রেজিষ্ট্রার ও দলিল লেখকের নামে অতিরিক্ত টাকা উত্তেলন করাসহ জমির শ্রেণীর পরিবর্তন এবং নানা অনিয়মের মধ্যে দিয়ে দলিল রেষ্ট্রি করা হয়। এসব বিষয়গুলো তদন্ত কর্মকর্তাকে বলেছি। কিন্তু তিনি অভিযুক্ত সাব-রেজিষ্ট্রারের পক্ষ নেওয়ায় তদন্ত কর্মকর্তার কার্যালয় ত্যাগ করেছি। আমরা তার কাছে সময় চেয়েছি।সকল প্রকার প্রমাণদী উপস্থাপনের জন্য। তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ধুনট উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রার রিপন চন্দ্র মন্ডল বলেন, তদন্ত করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন জেলা রেজিষ্ট্রার নিকট জমা দেওয়া হবে। তবে অভিযোগকারীরা মৌখিক সময় চেয়েছে। তাদের লিখিত ভাবে সময় চাওয়ার কথা বলা হয়েছে। তদন্ত করার স্থার্থে কোন কিছু এখন বলা যাচ্ছে না।

শেয়ার করুন