সারাদেশ

নন্দীগ্রামে ২২হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষের প্রস্তুতি

ফজলুর রহমান :

বগুড়ার নন্দীগ্রামে এ বছর কৃষি অফিসের বরাদ্দকৃত ২২ হাজার হেক্টর জমিতে চলছে বোরো চাষের প্রস্তুত্বি। প্রাপ্ত তথ্যে জানাযায়, এবছর চলতি বোরো মৌসুমে নন্দীগ্রাম উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় কৃষি অফিস থেকে ২২ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে। ওইসব জমিতে বোরো ধান রোপনের জন্য ৮শ হেক্টর জমিতে বীজ ফেলা হয়েছে। গত আমন মৌসুমের শেষের দিকে বৃষ্টি না হওয়ায় রবি শস্য আলু ও সরিষার চাষ কম হয়েছে। রবি শস্য কম হওয়ায় বোরো চাষ বেড়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে আমন মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে বাজারে ধানের দাম ও বেশ চড়া। বর্তমান বাজারে ব্রিধান-৪৯ বিক্রয় হচ্ছে ৮শ টাকা, বিনা-৭ বিক্রয় হচ্ছে ৯০০ হাজার টাকা, সুগন্ধী ৩৪ ধান বিক্রয় হচ্ছে ১৬শ টাকা দরে। একদিকে রবি শস্য চাষ কম হয়েছে অন্যদিকে আমন ধানের ফলন ও দাম ভালো পেয়ে কৃষকরা বোরো চাষে ঝুঁকে পড়েছে। অন্য আরেকটি কারন হিসেবে বলা যায়, গত বছর বোরো চাষীরা চরম লোকশানের সম্মুখীন হয়েছে। এছাড়াও তাদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। তারা গত বছরের বোরোর ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অন্যর জমি বর্গা নিয়ে বোরো চাষের প্রস্তুত্তি নিচ্ছে। নন্দীগ্রাম সদরের চাষী মো: নাজির উদ্দিন, বীরপলী গ্রামের রুহুল আমীন, কাথম গ্রামের আব্দুল মতিন, সিংড়া খালাস গ্রামের আব্দুল মজিদ, কৈগাড়ী গ্রামের মজিবর রহমান, রিধইল গ্রামের হাবিবুর রহমান এর সাথে কথা বললে তারা জানান, গত বছর খারাপ আবহাওয়ার কারনে বোরো ধানের চরম লোকশানের সম্মুখীন হয়েছি। তাই এবছর বোরো মৌসুমে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে নিজের জমির সাথে অন্যের জমি বর্গা নিয়ে বোরো চাষের প্রস্তুস্তি নিচ্ছি। এছাড়া এবছর আবহাওয়া ভালো আছে বোরো ধান ভালো হবে বলে আশা করছি। এবিষয়ে নন্দীগ্রাম উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহা. মশিদুল হকের সাথে কথা বললে তিনি জানান, এবছর আমন মৌসুমে বৃষ্টি না হওয়ায় রবি শস্য চাষ কিছুটা কম হয়েছে। তাছাড়া আমন মৌসুমে ভালো ফলন ও দাম পেয়ে কৃষকদের মাঝে বেশ সাড়া জেগেছে। আবহাওয়া ভালো হওয়ায় বীজতলাও ভালো হয়েছে। সব মিলিয়ে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।

Related Articles