শিরোনাম

আজ বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩১ অপরাহ্


নীলফামারীতে জমজমাট বৈশাখীর কেনাকাটা

নীলফামারীতে জমজমাট বৈশাখীর কেনাকাটা

নীলফামারী সংবাদদাতা:

মাত্র একদিন পর পহেলা বৈশাখ, আর বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ বরণ করতে সর্বত্র লেগেছে কেনাকাটার ধুম। নীলফামারীসহ জেলার প্রতিটি উপজেলার কাপড়ের দোকানগুলোতে কেনাকাটায় বইছে অনেকটা বৈশাখী ঝড়। বিভিন্ন ধরনের ছাড় ও আকর্ষণীয় অফার দিয়ে দেশি এবং বিদেশি বৈশাখী পোশাক কেনাকাটা করতে উপচে পড়া ভির দেখা গেছে ছোট-বড় দোকানগুলোতে।

তরুন-তরুণী, কিশোর-কিশোরী, বৃদ্ধা সবাই বৈশাখী কেনাকাটায় ব্যস্ত। পহেলা বৈশাখ ঘনিয়ে আসায় শুক্রবারও জমে উঠেছে শফিংমল, ফ্যাশন হাউজ ও বিপণিবিতানগুলো। বাদ পড়েছে না ফুটপাতের ছোট-ছোট খোলা দোকানগুলোও। বাংলার আবহে লাল-সবুজে তৈরী ফতুয়া, পাঞ্জবী, শার্ট, থ্রিাপস ও শাড়ির পসরা সাজিয়ে বিক্রি করছে দোকান মালিকরা বৈশাখী পন্য। আর একদিন পর রোববার পহেলা বৈশাখ। যে কারণে বাঙালি সংস্কৃতির অন্যতম এ দিনটি উদযাপন উপলক্ষে ইতোমধ্যে ব্যবসায়ীরা কম-বেশী বেশ ভালই বেচাবিক্রি করেছে। আর ঝামেলা এড়াতে ক্রেতারা পহেলা বৈশাখের আমেজ শুরুতেই তাদের পছন্দসই পন্য কেনাকাটা করেছেন তাদের আদরের সন্তানদের জন্য। শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত দেখা গেছে ডিমলা উপজেলার বিভিন্ন মার্কেট থেকে শুরু করে ফুটপাতের দোকানগুলোতে বৈশাখী কেনাকাটার ভির। এছাড়া অধিকাংশ মার্কেট ও বিপণিবিতান ক্রেতা আর্কষনে দিচ্ছে মূল্য ছাড়, গিফটসহ নানা অফার। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাবুরহাট বাজার ডিমলা মেইন রোড সংলগ্ন শুভেচ্ছা শফিং সেন্টার এর মালিক আবুজার রহমান আলাল বলেন, গত বছরের তুলনায় এবছর একটু কম বেচাবিক্রি হয়েছে, কারণ হিসেবে তিনি বলেন, বৈশাখের আমেজ শুরুর আগেই বোইরী আবহাওয়া থাকায় বেচাবিক্রি অনেকটাই কম হয়েছে। তার পরেও যাহয়েছে মন্দ না। এদিকে শুক্রবার সরেজমিনে বাবুরহাট ভিতর বাজার মার্কেটের মাসুদ ক্লোথ ষ্টোর, যমুনা গার্ডেন, এস টেক্স একদর শফিং সেন্টার, ড্রেস কালেকশন, দিদ্দিকা গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন বস্ত্র বিতানে শেষ মুহুর্তে ঘুরে দেখা গেছে কেনা বৈশাখের কেনাকাটার দৃশ্য। বৈশাখের পোশাক গুলোর মধ্যে দেখা গেছে মেয়েদের জন্য রংবেরঙের থ্রিপিস, কুর্তি, টপস, শাড়ি ও ছেলেদের জন্য পাঞ্জবি ও ফতুয়া বিক্র করতে। শিশুদের জন্যও রয়েছে দারুণ বৈশাখী কালেকশন বৈশাথখী পন্য সংগ্রহ। তাছাও বৈশাখ উপলক্ষে তারা এবার রেখেছিলেন ফ্যামিরি প্যাকেজ। সেখানে একই প্যাকেজে রয়েছে পরিবারের সবার জন্য একই ডিজাইনের পাঞ্জবি, শাড়ি, ফতুয়া, থ্রিপিচ ও ছোট জন্যও ম্যাসিং পোশাক। সেক্ষেত্রে ফ্যামেলি প্যাকেজের দাম ছিল হাতের লাগালে। আর শেষ দিনও কেনাকাটা করছে ক্রেতারা।

শেয়ার করুন