ইতিহাস-ঐতিহ্যখেলা-ধুলাজাতীয়বিনোদন

বগুড়ার শেরপুরে পুলিশ-সাংবাদিক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

মাহফুজ আহম্মেদ, শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ

‘‘আসুন যুব সমাজকে নেশা মুক্ত করি, খেলাধুলায় মনোনিবেশ গড়ি” এই প্রত্যয়কে সামনে রেখে অত্যন্ত আনন্দঘন ও উৎসবমুখর পরিবেশে ১৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকালে বগুড়ার শেরপুর সরকারি ডিজে হাইস্কুল খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হলো পুলিশ-সাংবাদিক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ ২০১৮।
উক্ত প্রীতি ম্যাচের শুভ উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি বগুড়া-৫ শেরপুর-ধুনট নির্বাচনী এলাকার জাতীয় সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবর রহমান।
শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হুমায়ুন কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন শেরপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেরপুর সার্কেল গাজিউর রহমান, ধুনট পৌরসভার মেয়র এজিএম বাদশা, শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মকবুল হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব আম্বিয়া, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল কাইয়ুম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সৈয়দ শামীম ইফতেখার, বদরুল ইসলাম পোদ্দার ববি, উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি দীপক কুমার সরকার, সাংবাদিক সবুজ চৌধুরী। অন্যান্যদের মধ্যে শিল্পপতি আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম শিরু, শেরপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসাইন, সহ-সভাপতি আব্দুল মান্নান, নির্বাহী সদস্য জাহাঙ্গীর ইসলাম, শাহ জামাল কামাল, সাংবাদিক বাদশা আলম, নাহিদ হাসান রবিন, আবু বকর সিদ্দিক, বাধন কর্মকার কৃষ্ণ, প্রধান শিক্ষক সুধীন্দ্রনাথ রায়, শেরপুর দলিল লেখক সমিতির সভাপতি এসএম ফেরদৌস প্রমুখসহ উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার গনমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন ।
পুলিশ একাদশের পক্ষে শেরপুর থানা পরিদর্শক তদন্ত বুলবুল ইসলাম ও সাংবাদিক একাদশের পক্ষে রাশেদুল ইসলামের অধিনায়কত্বে পুলিশ-সাংবাদিক প্রীতি ফুটবল ম্যাচটি পরিচালিত হয় এবং রেফারির দায়িত্ব পালন করেন শেরপুর ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সিদ্ধার্থ শংকর সাহা বাবন। নির্ধারিত খেলায় সাংবাদিক একাদশকে (২-১) গোলে হারিয়ে পুলিশ একাদশ বিজয়ী হয়। তবে শেরপুরে এই প্রথম পুলিশ প্রশাসন ও সাংবাদিক ফুটবল খেলা দেখতে খেলার মাঠটিতে হাজারো ক্রীড়ামোদী দর্শকদের ভীড় ছিলো লক্ষনীয়। তাছাড়া ব্যতিক্রমী উদ্যোগের এ ফুটবল ম্যাচের আয়োজক কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিরা বলেন, যুবসমাজ আজ নেশা ও অসামাজিক কার্যকলাপে ডুবে যাচ্ছে, এসব বিপথগামীদের সুপথে ফিরে আনতে খেলাধুলার বিকল্প নেই। তাইতো এধরনে আয়োজন যেন প্রতিটি এলাকায় অনুষ্ঠিত হয়, সেজন্য বক্তারা সমাজের সচেতনমহলের সর্বাত্মক সহযোগীতা কামনা করেন। খেলা শেষে বিজয়ী ও রানার্স আপ দলের খেলোয়াড়দের মাঝে মেডেল প্রদান করা হয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *