মুক্তি মিলবে রাষ্ট্র ব্যবস্থা বদল হলে

মুক্তি মিলবে রাষ্ট্র ব্যবস্থা বদল হলে

এমিরেটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, এই রাষ্ট্র মানুষের অধিকার দিচ্ছে না। এ রাষ্ট্রে শিশুরাও ধর্ষিত হচ্ছে। রাষ্ট্র এখন মানুষের পক্ষে নয়। রাষ্ট্র এখন মানুষের শক্র হয়ে গেছে। সব সমস্যা রাষ্ট্র ব্যবস্থার সঙ্গে জড়িত। এ ব্যবস্থা বদল করতে না পারলে মুক্তি নেই।মঙ্গলবার ২৯ অক্টোবর জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে আয়োজিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব বলেন তিনি। ভাসানী অনুসারী পরিষদ ‘ভারত-বাংলাদেশ স্বাক্ষরিত ফেনী নদীর পানি চুক্তিতে দেশের জনগণ উদ্বিগ্ন জাতীয় এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি নিয়ে ভারত-বাংলাদেশ পানি বিতর্ক’ শীর্ষক এ সেমিনারের আয়োজন করে।ভাসানী অনুসারী পরিষদের চেয়ারম্যান ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সভাপতিত্বে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক আসিফ নজরুল। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন- জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার। আলোচনা করেন পানি বিশেষজ্ঞ ম ইনামুল হক, অধ্যাপক নুরুল আমিন ব্যাপারী, নঈম জাহাঙ্গীর ও এটিএম গোলাম মাওলা চৌধুরী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন- আয়োজক সংগঠনের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু। সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী আরও বলেন, পানির সঙ্গে রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব ও অস্তিত্ব জড়িত। মানুষ কীভাবে বাঁচবে তা পানির ওপর নির্ভর করে। পানির অপর নাম জীবন। রাজনৈতিক কারণে রাষ্ট্রীয় কারণে পানি বিপণ্ন হচ্ছে।

তিনি বলেন, পাকিস্তান আমল থেকে নদী নিয়ে নানা সমস্যা শুরু হয়েছে। সে সমস্যা বর্তমানে ফেনী নদীর পানিতে গিয়ে ঠেকেছে। পানি সমস্যার সমাধান মানুষকেই করতে হবে। জ্ঞান ও আবেগ দুই-ই কাজে লাগাতে হবে। কীভাবে করতে হবে তা মওলানা ভাসানী শিখিয়ে গেছেন।

অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেন, সরকার বলেছে মানবিক দিক বিবেচনা করে ফেনী নদীর পানি দেওয়া হচ্ছে, কিন্তু অভিন্ন ৫৪ নদীর ন্যায্য পানির অভাবে আমাদের দেশের কৃষিসহ নানা দিক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আমাদের দেশের কোটি কোটি মানুষের মানবিক দিকটি কেউ দেখছে না। আমরা চাই দুই পক্ষই মানবিক হোক।সভাপতির বক্তব্যে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, একটি নতজানু সরকার পানির অধিকার দিতে পারবে না। ভোটের অধিকারের মাধ্যমেই একটি দেশের সার্বভৌমত্ব ফিরে আসতে পারে।

শেয়ার করুন