আজ বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন


‘দৌড়ের ওপর’ সুব্রত,ছুটছেন ফিরোজ

‘দৌড়ের ওপর’ সুব্রত,ছুটছেন ফিরোজ

আলো রিপোর্ট :

ঢাকা-৬ আসনে পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় সবচেয়ে বেশি প্রচার দেখা গেল মহাজোটের প্রার্থী কাজী ফিরোজ রশীদের। অন্য প্রার্থীরা সেভাবে মাঠে না নামলেও ফিরোজ নেমেছেন, প্রচারও চালাচ্ছেন। আর শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে মনোনয়ন পাওয়া গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলছেন, তিনি মাঠে নামতে পারছেন না। ‘দৌড়ের ওপর’ আছেন। সুব্রত চৌধুরী। ফাইল ছবি সুব্রত চৌধুরী। ফাইল ছবি এই এলাকার রাজনীতি বোঝেন—এমন ব্যক্তিরা বলছেন, অন্যান্য আসনে নৌকা-ধানের শীষের সরাসরি প্রার্থী থাকলেও এই আসনে সরাসরি প্রার্থী নেই। মহাজোটের প্রার্থী ফিরোজ লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে আর সুব্রত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। সরাসরি শক্তিশালী দুই দলের প্রার্থী না থাকায় ও সংখ্যালঘু ভোটার বেশি হওয়ায় ভোটের সমীকরণও কিছুটা ভিন্ন হবে এই আসনে। ঢাকা-৬ আসনটি পুরান ঢাকার ওয়ারী, গেন্ডারিয়া, সূত্রাপুর, কোতোয়ালি ও বংশালের অংশ নিয়ে গঠিত। এ আসনে বিভিন্ন প্রতীকে আটজন নির্বাচন করছেন। অন্য প্রার্থীরা হলেন গণফ্রন্টের আহমেদ আলী শেখ (মাছ), বাংলাদেশ মুসলিম লীগের ববি হাজ্জাজ (হারিকেন), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. আক্তার হোসেন (আম), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির আবু তাহের হোসেন (কাস্তে), জাতীয় পার্টি-জেপির সৈয়দ নাজমুল হুদা (বাইসাইকেল) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাজি মো. মনোয়ার খান (হাতপাখা)। শাখারিবাজার এলাকায় নির্বাচনের পোস্টার। শাখারীবাজার এলাকায় নির্বাচনের পোস্টার। গেন্ডারিয়ায় সতীশ সরকার রোডের অলিগলিতে কয়েক দিন আগে থেকে একাদশ জাতীয় নির্বাচনের প্রার্থীদের পোস্টার লাগানো হচ্ছে। এই কাজে জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের কর্মীরাও কাজ করছেন। পোস্টার লাগানোর সময় কথা হয় আওয়ামী লীগের কর্মী আবু সাঈদ ও নূর ইসলামের সঙ্গে। তাঁরা বলছিলেন, যেহেতু আওয়ামী লীগ থেকে সরাসরি প্রার্থী নেই, তাই জাতীয় পার্টির প্রার্থীর সমর্থনে তাঁরা কাজ করছেন। শুধু পোস্টার লাগানো নয়, তাঁরা মিছিল, মাইকিং, ভোটের প্রচার থেকে শুরু করে সবকিছুতেই কাজ ভাগাভাগি করে নিয়েছেন। এই সড়কে কথা হয় ব্যবসায়ী ফয়সাল আবু তাহেরের সঙ্গে। তিনি বলছিলেন, ‘আমাদের এলাকায় কিছুটা হলেও ভোটের আমেজ এসেছে। ঘুরেফিরে এই আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থীর পোস্টার আর মিছিল দেখছি। অন্য প্রার্থীরা তো মাঠেই নামছে না। ঐক্যফ্রন্ট থেকে যে প্রার্থী দাঁড়িয়েছেন, তাঁর নামই শুনলাম কয় দিন আগে। বাস্তবে তাঁরে তো দেখলামই না, তাঁর পোস্টারও পাইলাম না। ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করছেন, তাঁর বাড়ি চট্টগ্রামে। তিনি কখনো পুরান ঢাকায় এসেছেন বলে শুনিনি।’ তরুণ ভোটার রতন চন্দ্র দেও একই কথা বললেন। তিনি বলেন, ধানের শীষের কিছু নীরব ভোটার আছে এই এলাকায়। কিন্তু প্রার্থীকে তো চিনতে হবে। যাঁকে ভোট দেবে, তাঁর চেহারাই যদি না দেখা যায়, ভোট দেবে কীভাবে। এই আসনের বেশির ভাগ ভোটার সংখ্যালঘু হওয়ায় একজন প্রার্থীর পাল্লায়ই বেশি ভোট পড়বে বলে জানান তিনি। ভোটাররা কাকে বেশি ভোট দেবেন—জানতে চাইলে তিনি কিছুটা কৌশল করে বলেন, ‘এটা বুঝে নেন, ভেঙে বলব না।’ গতকাল রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে লক্ষ্মীবাজার মোড়ে জনসংযোগ করছিলেন এই আসনের বর্তমান সাংসদ কাজী ফিরোজ। দলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তিনি এই এলাকার লোকজনের দলীয় পোস্টার দেন এবং ভোট চান। তিনি বলেন, ‘আমি এই এলাকারই মানুষ। ১৯৬৩ সাল থেকে এই এলাকার মানুষের সুখে–দুঃখে পাশে থেকেছি। সংখ্যালঘুর পাশে থেকেছি। তাঁদের নিরাপত্তার জন্য কাজ করেছি। তাঁরা আমাকে ভোট দিয়ে আবারও নির্বাচিত করবেন বলে আশা করি।’ বর্তমান সাংসদ ফিরোজের কথা বলতে গিয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীর প্রসঙ্গ তুললেন লক্ষ্মীবাজারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক। তিনি বললেন, ‘ফিরোজকে গতবার নির্বাচিত করেছিলাম আমরা। রাস্তাঘাটের উন্নয়নে তেমন অগ্রগতি হয়নি। তবে এবারও তিনি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। এখন দেখি, ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী সুব্রত কী বলেন। তাঁর কথার ওপর নির্ভর করবে আমরা ভোট কাকে দেব। তবে দুঃখের বিষয় হচ্ছে, তাঁকেও দেখলাম না, তাঁর পোস্টারও দেখলাম না।’ গেন্ডারিয়ায় সতীশ সরকার রোডে কাজী ফিরোজের পোস্টার লাগাচ্ছেন আওয়ামী লীগের কর্মীরা। গেন্ডারিয়ায় সতীশ সরকার রোডে কাজী ফিরোজের পোস্টার লাগাচ্ছেন আওয়ামী লীগের কর্মীরা। লক্ষ্মীবাজারের গোবিন্দ দত্ত লেনের বাসিন্দা ডাবলু বসাকও ঐক্যফ্রন্টের নতুন প্রার্থীর বিষয়ে সংশয় প্রকাশ করলেন। তিনি বলেন, ‘সুব্রত সাহেবকে তো দেখি না। নির্বাচনে আছেন, না ছাইড়া দিছেন, বুঝতাছি না। মাঠে থাকলে আসেন না কেন?’ শাঁখারীবাজারের একাংশ পড়েছে ঢাকা-৬ আসনে। আদালতের পাশ দিয়ে এই সড়কে ঢোকার মুখেই দেখা গেল, মাইকে কাজী ফিরোজের প্রচারণা চলছে। এই সড়কেও তাঁর পোস্টারে ভরা। স্বর্ণের ব্যবসায়ী স্বপন দে বলছিলেন, ‘ভোটের উত্তাপ কিছুটা পাইতেছি। প্রচারে ফিরোজই এগিয়ে আছেন। আর দুই–একজনের পোস্টার-মোস্টার দেখছি। নির্বাচনের কয় দিন আগে বুঝা যাইব, কেডা এবার পাস করব। তবে যে–ই আসুক, আমরা শান্তিতে ব্যবসা করতে চাই। মারামারি–কাটাকাটি হইলে আমাদের ব্যবসা নষ্ট হয়। আমরা সাধারণ মানুষ শান্তি চাই।’ এই এলাকার ব্যবসায়ী টেরক নাথ বসাক বলছিলেন, ‘ঢাকা-৬ আসনে হিন্দুদের ভোট বেশি। যে প্রার্থী আমাদের স্বার্থের কথা চিন্তা করবেন, তাঁকেই ভোট দেব।’ তবে প্রার্থী বাছাইয়ের বিষয়ে কিছুটা আপত্তি জানালেন তিনি। বললেন, ঢাকার এই গুরুত্বপূর্ণ আসনে মহাজোট বা ঐক্যফ্রন্ট থেকে নয়, নৌকা বা ধানের শীষের সরাসরি প্রার্থী হলেই মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন পাওয়া যেত। নির্বাচনে বাধা দেওয়ার অভিযোগ সুব্রতর নির্বাচনের মাঠে আপনার উপস্থিতি কম কেন, জানতে চাইলে সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘আপনারা তো দেখেছেন, আমাকে দাঁড়াতেই দিচ্ছে না। আমি আছি “দৌড়ের ওপর”। জনসংযোগ করলেই পুলিশ বাধা দিচ্ছে। আবার আমি যেখানে যাই, পুলিশ সেখানে ক্ষমতাসীন দলের লোকদের ডেকে এনে গন্ডগোল বাধিয়ে দিচ্ছে। তারা হামলা করলেও পুলিশ তাদের কিছু বলছে না।’ এভাবে অভিযোগ করে সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘গত শনিবার আমি ইত্তেফাকের মোড় থেকে গণসংযোগ করতে করতে হাটখোলা যাই। সেখানে একটি দোকানে উঠছিলাম। ওই দোকানের মধ্যে ঢুকেই হামলা করল। ১৫-২০ জনের একটি দল এসেই আমার ও আমার কর্মীদের ওপর হামলা করে। লিফলেটসহ সবকিছু তছনছ করে দেয়।’

শেয়ার করুন