মাত্র ৩ দিন সময় জামায়াত নেতাদের ভোট ভাগ্য নিধার্রণে

মাত্র ৩ দিন সময় জামায়াত নেতাদের ভোট ভাগ্য নিধার্রণে

নিজস্ব প্রতিবেদক

একাদশ জাতীয় নিবার্চনে জামায়াতের ২৫ নেতার প্রাথির্তা বাতিলের পদক্ষেপ নিতে নিবার্চন কমিশনে করা আবেদন তিন দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে নিদের্শ দিয়েছে হাইকোটর্। নিবন্ধন বাতিল হওয়া জামায়াতে ইসলামীর ২৫ নেতার নিবার্চনে অংশগ্রহণের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে করা একটি রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর হাইকোটর্ বেঞ্চ মঙ্গলবার রুলসহ এ আদেশ দেয়। প্রাথমিক শুনানির পর আদালত রিট আবেদনকারীদের নিবার্চন কমিশনে আবেদন করতে বললে জামায়াতের ২৫ নেতার প্রাথির্তা বাতিলে পদক্ষেপ নিতে সোমবার নিবার্চন কমিশনে আবেদন করেন রিট আবেদনকারীরা। মঙ্গলবার ইসি প্রতিনিধির উপস্থিতিতে প্রাথমিক শুনানির পর সেই আবেদনটি তিন দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে নিবার্চন কমিশনকে নিদের্শ দিয়েছেন আদালত। রিটকারী পক্ষে আদালতে শুনানি করেন ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর। নিবার্চন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী তৌহিদুল ইসলাম। হাইকোটের্র রায়ে জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিলের বিষয়টি উল্লেখ করে রিটকারীদের আবেদনে বলা হয়েছে, ‘ইদানীং বিভিন্ন পত্র পত্রিকার মাধ্যমে জানতে পারি, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ২৫ জন প্রাথীর্ তাদের রাজনৈতিক পরিচয় গোপন রেখে অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের প্রতীক বা স্বতন্ত্র প্রাথীর্ হিসেবে নিবার্চন কমিশনে নমিনেশন পেপার জমা দেন, যা অত্র ইলেকশন কমিশন কতৃর্ক গৃহীত হয় এবং তাদের বৈধ প্রাথীর্ হিসেবে নিবার্চন করার সুযোগ প্রদান করা হয়েছে, যা আইনগত বৈধ নয়।’ ২০০৮ সালের ১ অগাস্ট তরিকত ফেডারেশনের দায়ের করা এক রিট মামলার রায়ে হাইকোটর্ রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল করে। নিবন্ধন বাতিল হলেও বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী এ দলের নেতারা এবার তাদের জোটসঙ্গী বিএনপির মনোনয়নে ধানের শীষ প্রতীকে প্রাথীর্ হয়েছেন। স্বতন্ত্র হিসেবেও প্রতিদ্ব›িদ্বতায় আছেন কয়েকজন। ওই ২৫ প্রাথীর্র প্রাথির্তা বাতিলের পদক্ষেপ নেওয়ার আরজি জানিয়ে আবেদনে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ওয়েবসাইট থেকে তাদের রাজনৈতিক দলের ২৫ জন প্রাথীর্র তথ্য-উপাত্ত এবং তদসংক্রান্তে প্রকাশিত বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার রিপোটর্ দাখিলপূবর্ক আপনার নিকট সবিনয়ে নিবেদন করছি, রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ওই ২৫ প্রাথীর্র প্রাথির্তা বাতিলপূবর্ক যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে আপনার সদয় মজির্ হয় এবং আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে প্রাথর্না করছি।’ আবেদনকারীরা হলেনÑবাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের মহাসচিব সৈয়দ রেজাউল হক চঁাদপুরী, সমাজ কল্যাণ সচিব শাহ মোহাম্মদ আলী হুসাইন, ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ এর সভাপতি হুমায়ুন কবির ও সংগঠনটির সভাপতিমÐলীর সদস্য মো. এমদাদুল হক। জামায়াত নেতাদের নিবার্চনে অংশগ্রহণের অযোগ্য ঘোষণা চেয়ে হাইকোটের্ তারাই আবেদন করেন। আবেদনে জামায়াতের ২৫ প্রাথীর্সহ প্রধান নিবার্চন কমিশনার (সিইসি), নিবার্চন কমিশন সচিব, জামায়াতে ইসলামীর পক্ষে সেক্রেটারি জেনারেল ও আমিরকে বিবাদি করা হয়েছে। জামায়াত নেতাদের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করে নিবার্চন কমিশন (ইসি) যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা নিয়ে রুল চাওয়া হয় রিটে। এছাড়া রুল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় ওই ২৫ প্রাথীর্র মনোনয়ন স্থগিত চাওয়া হয় রিটে। রিট আবেদনের পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর সোমবার শুনানিতে বলেন, জামায়াতের নিবন্ধনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোটের্ ২০০৯ সালে রিট করা হয়। ওই রিটের ওপর জারি করা রুলের চূড়ান্ত শুনানি নিয়ে ২০১৩ সালে হাইকোটর্ জামায়াতের নিবন্ধন আইনগত কতৃর্ত্ববহিভূর্ত ও অবৈধ ঘোষণা করে। হাইকোটের্র ওই রায়ে বলা হয়, রাজনৈতিক দল হিসেবে ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০বি (১)(বি) (২) ও ৯০সি অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘষির্ক ও সংবিধানপরিপন্থি। সেই রায় এখনও বহাল আছে। তানিয়া বলেন, যেহেতু জামায়াতের নিবন্ধন নেই, তাই ওই দলের কোনো নেতা নিজস্ব প্রতীকে নিবার্চন করতে পারছেন না। যেহেতু নিজস্ব প্রতীকে পারছেন না, সেহেতু অন্য কোনো দলের প্রতীকে নিবার্চনে অংশগ্রহণেরও সুযোগ নেই। ‘এরপরেও জামায়াতের নেতাদের ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে এবং স্বতন্ত্র প্রাথীর্ হিসেবে একাদশ সংসদ নিবার্চনে অংশগ্রহণের সুযোগ দিয়ে ইসি হাইকোটের্র রায় ও গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশের বিভিন্ন বিধির সঙ্গে প্রতারণা, প্রবঞ্চনা করেছে।’ বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ নিয়ে জামায়াতের ২২ জন নেতা এবার ভোটের মাঠে রয়েছেন। এরা হলেন ঢাকা-১৫ আসনে ডা. শফিকুর রহমান, সিরাজগঞ্জ-৪ আসনে রফিকুল ইসলাম খান, খুলনা-৬ আসনে আবুল কালাম আজাদ, কুমিল্লা-১১ আসনে সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের, খুলনা-৫ আসনে মিয়া গোলাম পারোয়ার, পাবনা-৩ আনোয়ারুল ইসলাম, পাবনা-৫ আসনে ইকবাল হোসাইন, যশোর-২ আসনে আবু সাঈদ মো. শাহাদাত হোসাইন, ঠাকুরগঁাও-২ আসনে আবদুল হাকিম, দিনাজপুর-১ আসনে আবু হানিফ, দিনাজপুর-৬ আসনে আনোয়ারুল ইসলাম, নীলফামারী-৩ আসনে আজিজুল ইসলাম, গাইবান্ধা-১ আসনে মাজেদুর রহমান, সাতক্ষীরা-২ আসনে মুহাদ্দিস আবদুল খালেক, সাতক্ষীরা-৪ আসনে গাজী নজরুল ইসলাম, পিরোজপুর-১ আসনে শামীম সাঈদী, নীলফামারী-২ আসনে মো. মনিরুজ্জামান, ঝিনাইদহ-৩ মতিয়ার রহমান, বাগেরহাট-৩ আসনে ওয়াদুল শেখ, বাগেরহাট-৪ আসনে আব্দুল আলীম ও চট্টগ্রাম-১৫ আসনে শামসুল ইসলাম। জামায়াত নেতা হামিদুর রহমান আযাদ কক্সাবাজার-২ আসনে স্বতন্ত্র প্রাথীর্ হয়েছেন। সেখানে বিএনপি অন্য কোনো প্রাথীর্ দেয়নি। এছাড়া জামায়াতের নূরুল ইসলাম বুলবুল চঁাপাইনবাবগঞ্জ-৩, জহিরুল ইসলাম চট্টগ্রাম-১৬ এবং ব্যারিস্টার নাজিবুর রহমান পাবনা-১ আসনে স্বতন্ত্র হিসেবে নিবার্চন করছেন

শেয়ার করুন