গাইবান্ধা জেলা পুলিশের হাতে আন্তঃজেলা তালা ও গ্রীলকাটা চক্রের ৮ সদস্য গ্রেফতার

গাইবান্ধা জেলা পুলিশের হাতে আন্তঃজেলা তালা ও গ্রীলকাটা চক্রের ৮ সদস্য গ্রেফতার

অবশেষে আন্তঃজেলা তালা,গ্রিল কাটা চক্রের ৪ সদস্য কে গ্রেফতার,পিকাপ,মোটরসাইকল, হাইড্রলিক কাটার সহ বিপুল পরিমান চোরাই শাড়ী, লুঙ্গি ও থ্রি পিস উদ্ধার করেছে গাইবান্ধা জেলা পুলিশ।
বিগত কয়েক মাস ধরে দেশের বিভিন্ন জেলা সহ গাইবান্ধার কয়েকটি থানা এলাকায় হাইড্রলিক কাটার মেশিন দিয়ে বেশ কিছু বড় দোকানের তালা ও গ্রিল কেটে লক্ষ লক্ষ টাকার শাড়ী,লুংগি,থ্রি পিস সহ বিভিন্ন ধরনের কাপড় চুরির সিন্ডিকেট নিয়ে অনেক জেলা পুলিশ যখন হিমসিম খাচ্ছিলো তখনই গাইবান্ধা জেলার সুযোগ্য নবাগত পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলামের নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ‘বি’ সার্কেল জনাব ময়নুল হকের নেতৃত্বে ওসি,গোবিন্দগঞ্জ, একেএম মেহেদী হাসান, ওসি ফুলছড়ি সহ ডিবি ও ফুলছড়ি থানার মোট ১২ জনের একটি চৌকস টিম গত ১৮ আগষ্ট বিকাল ৪টা হতে আজ ১৯ আগষ্ট বেলা ১২ টা পর্যন্ত সিরাজগঞ্জ শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে সাড়াশি অভিযান পরিচালনা করে।অভিযানে ঐ চক্রের পেশাদার ৪ সদস্য গ্রেফতার, চোরাই কাজে ব্যবহ্রত একটি মিনি পিকাপ, একটি মোটরসাইকেল, তালা ও গ্রিল কাটবার হাইড্রলিক কাটার মেশিন সহ চুরি যাওয়া শাড়ী,লুঙ্গি ও শতাধিক থ্রি পিস উদ্ধার করে।
এই চক্রের মুলহোতা সিরাজগঞ্জ শহরের মিরপুর এলাকার আমিনুল একাধিক পেশাদার চোরকে নিয়োগ পূর্বক তাদের কে পিকাপ, মোটরসাইকেল, চুরি করার যাবতীয় যন্ত্রপাতি সরবরাহ করে থাকে এরপর চোরেরা দেশের বিভিন্ন জেলা – উপজেলা হতে বড় বড় দোকানের কাপড় জাতীয় মালামাল চুরি করে এনে চোরেরা গড ফাদার আমিনুল কে সূলভ মূল্যে মালামাল গুলি দিয়ে থাকে।
অভিযানে গ্রেফতারকৃত পেশাদার আসামি ১। সিরাজগঞ্জ শহরের কাদের@ দুককা ২। লেংড়া সাইফুল বেলকুচি এলাকার ৩। ছোট আমিনুল ও ৪। টাংগাইল এলাকার হাই গ্রেফতার হলেও এই চক্রে অনেকে এখন গা-ঢাকা দিয়েছে। যাদের গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা অব্যহত আছে এ টিমের এখবর নিশ্চিত করেন গোবিন্দগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ এ কে এম মেহেদী হাসান ।

শেয়ার করুন