সব বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে শিগগিরই অভিযান

সব বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে শিগগিরই অভিযান

রাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, ‘শিগগিরই দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে অভিযান চালানো হবে। হলে শুধু ছাত্ররাই থাকবে। কোনো সন্ত্রাসীর স্থান হবে না।’বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় তিনি বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ড, চলমান শুদ্ধি অভিযান নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শিগগিরই বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে অভিযান পরিচালনা করব। বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করেই এটা করা হবে। সারা দেশের কলেজগুলোর হলগুলোতেও অভিযান চালানো হবে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী গতকাল সংবাদ সম্মেলনে অত্যন্ত শক্ত ভাষায় বলেছেন, সন্ত্রাসীরা যে দলেরই হোক ছাড় পাবে না। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। শিক্ষাঙ্গনে কোনোভাবেই অরাজকতা কাম্য নয়। যারা অরাজকতা সৃষ্টি করে তাদের কোনো দল নেই।’আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। আমরা এ নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছি। আমরা প্রত্যেকটি ছাত্রাবাস তল্লাশির আওতায় আনব। হলে কোনো সন্ত্রাসীকে বসবাস করতে দেওয়া হবে না।’

ফেইসবুকে মন্তব্যের সূত্র ধরে শিবির সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে আবরারকে লাঠি ও ক্রিকেট স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয় বলে ইতোমধ্যে পুলিশের তদন্তে উঠে এসেছে।

বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরাই যে মাতাল অবস্থায় আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেছে, তা উঠে এসেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এই ভাতৃপ্রতীম সংগঠনের নিজস্ব তদন্তেও।

এই প্রেক্ষাপটে বুয়েট ছাত্রলীগের ১১ জনকে ইতোমধ্যে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ‘মাস্তানিতে’ জড়িতদের ধরতে ‘কে কোন দলের তা না দেখে’ সারা দেশের সব কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে তল্লাশি চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সেই প্রসঙ্গ টেনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, যারা দুষ্কৃতকারী, যারা এই সমস্ত কাণ্ডকারখানা ঘটায়, রাজনীতির সঙ্গে তাদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই, সে বিষয়ে আমরা কঠিন এবং কঠোরতম।

“পাশাপাশি তিনি এ কথাও বলেছেন, কোনো ইনফরমেশন কিংবা কোনো কিছু যদি থাকে কিংবা নাও থাকে। তাহলেও যেন প্রত্যেক ছাত্রাবাস তল্লাশির আওতায় নিয়ে আসা হয়। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসারেই কাজ করছি।”

আবরার হত্যায় জড়িতদের পুলিশ ‘যথাসময়ে’ গ্রেপ্তার করতে পেরেছে মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, “আমরা আশা করি, বিচারের কাজটা যাতে দ্রুততার সঙ্গে শেষ হয়। একটা নিখুঁত চার্জশিট দিয়ে সেটা আমরা সহজতর করে দিচ্ছি।”

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী হলগুলোতে কবে থেকে তল্লাশি চালানো হবে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “আমরা আলোচনার মাধ্যমে ঠিক করে নেব, কোথায় কীভাবে…।আরো কিছু ফর্মালিটিজ পালন করতে হয়, আপনারা জানেন… ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে…। তবে আমরা কলেজগুলোতেও দেখব।কলেজগুলোর ছাত্রাবাসগুলোতে যদি এরকম উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করে, কিংবা আইন ভঙ্গ করে, কিংবা …। এ বিষয়ে আমাদের গোয়েন্দারা কাজ করছেন।বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে ‘টর্চার সেল’ ও ‘র‌্যাগিং’ নিয়ে এক পশ্নে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, “আমার মনে হয় বেশি রকম এ কালচারটা রয়েছে বুয়েটে। বুয়েটে আমরা এটা বেশি দেখেছি। কিছুটা দেখেছি জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটিতে, ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে বেশি নেই আমার মনে হয়।… এ কালচার থেকে কীভাবে বেরিয়ে আসবেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এ নিয়ে চিন্তাভাবনা করা উচিত বলে আমি মনে করি।”দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের ‘শুদ্ধি অভিযানে’ ভাটা পড়েছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “কোনো ভাটা পড়েনি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গতকাল সুন্দরভাবে এক্সপ্লেইন করে দিয়েছেন। আমার মনে হয় এরপর আমার আর কিছু বলার নেই।শুদ্ধি অভিযান সব সময়ই চালাতে হয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, “ইদানিংকালে যেগুলো হচ্ছে, তারা মাত্রার বাইরে চলে গিয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সে ব্যাপারে অ্যাকশন নিচ্ছেন এবং নির্দেশনা দিচ্ছেন।

শেয়ার করুন