কিস্তির টাকা দিতে না পেরে এক চিকিৎসকের আত্মহত্যা

কিস্তির টাকা দিতে না পেরে এক চিকিৎসকের আত্মহত্যা

সাতক্ষীরা(তালা)প্রতিনিধি

সাতক্ষীরায় এনজিওর কিস্তির টাকা দিতে না পেরে গলায় রশি দিয়ে এক পল্লী চিকিৎসক আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ  উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল সকাল সাড়ে আটটায় ফিংড়ী ইউনিয়নের হাবাসপুর ভুক্তভোগীর নিজস্ব বাড়িতে। আত্মহত্যাকারী সদর উপজেলার হাবাসপুর গ্রামের মৃত নিছার উদ্দীনের পুত্র পল্লী চিকিৎসক এনামুল হক (৫২)। পারিবারিক সূত্রে জানাগেছে ঐ চিকিৎসক পারিবারিক অস্বচ্ছলতার কারনে বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋন টাকা গ্রহন করেন। কিন্তু অভাবের কারনে সময় মত কিস্তির টাকা দিতে ব্যর্থ হচ্ছে। পাশাপাশি সুদের টাকা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমন অবস্থায় এনজিও প্রতিনিধিরা প্রতিনিয়ত তার কাছে টাকার চাপ দিচ্ছিল। এর মধ্যে ঐ চিকিৎসক ঢাকায় চলে যায়। নিহতের স্ত্রী হামেদা খাতুন জানান সাম্প্রতিক ঢাকা থেকে বাড়িতে এসেছেন এমন খবর পেয়ে এনজিও প্রতিনিধি ও স্থানীয় পাওনাদার তার বাড়িতে গিয়ে টাকা চাপ দেওয়ার পাশাপাশি হুমকি প্রদর্শন করে। গতকাল সকালে তার স্ত্রী রান্না ঘরে ছিল। হঠাৎ ঘরে প্রবেশ করে দেখেন তার স্বামী ফ্যানের সাথে গলায় রশি দিয়ে ঝুলছে, তার হাক চিৎকারে প্রতিবেশিরা ছুটে এসে ফ্যান থেকে নিচে নামানোর পূর্বে তার মৃত্যু হয়। সদর থানা পুলিশ খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে সুরাত হাল শেষে মর্গে প্রেরন করেছেন। এ ব্যাপারে সদর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। সদর থানার ওসি মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। স্থানীয়রা ধারনা করেছেন সুদের টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন।

শেয়ার করুন