শিরোনাম

আজ বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৩:১৯ অপরাহ্


কালিয়াকৈরে লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সে ডাকাতি!

কালিয়াকৈরে লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সে ডাকাতি!

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে রাতে সড়কে গাছ ফেলে লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এসময় আরো ২-৩টি পরিবহনেরও ডাকাতি করা হয়। লুট করা হয়েছে টাকা, মোবাইল ফোনসহ বিভিন্ন মালামাল। ডাকাতদের হামলায় চারজন আহত হয়েছেন।এলাকাবাসী, ডাকাত কবলিত পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের হাটুরিয়াচালা এলাকায় রাত ১টার দিকে ওই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ওই এলাকার স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেনের বড় ভাই মজনু মিয়া হৃদরোগে আকান্ত হলে তাকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

সেখানে সোমবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। পরে সাবেক ইউপি সদস্য আনোয়ারসহ তার পরিবারের লোকজন একটি এ্যাম্বুলেন্স করে মজনু মিয়ার লাশ নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। ফেরার পথে কালিয়াকৈর-ভাওয়াল মির্জাপুর সড়কের উপজেলার হাটুরিয়াচালা গলাচিপা বনের কাছে পৌছলে তাদের লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সটি ডাকাতের কবলে পড়ে।

এ সময় সাবেক ইউপি সদস্য আনোয়ার এটা লাশের গাড়ি, লাশের গাড়ি বলে কেঁদে উঠলেও ডাকাত সদস্যরা কোনো কথা শুনেনি। তারা দা দিয়ে কুপিয়ে লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সের গ্লাস ভেঙ্গে ফেলে।এসময় আনোয়ারকে দা দিয়ে কুপ দিলেও অল্পের জন্য প্রানে বেঁচে যান তিনি। পরে তার কাছ থেকে মোবাইল ফোন, ৭ হাজার টাকা লুট করে নেয় ডাকাতরা। তাদের লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সের আগে ৫-৭জনের একদল ডাকাত সড়কে গাছ ফেলে প্রথমে হাটুরিয়াচালা এলাকার শামিম হোসেন মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে। পরে তাকে বেধে মারধর করে সড়কের পাশে ফেলে তার মোবাইল ফোন ও ৩৫ হাজার টাকা লুট করা হয়। এছাড়াও তারা অপর একটি মাইক্রোবাসের গতিরোধ করে বিভিন্ন মালামাল লুট করে।

এসময় ডাক-চিৎকারের আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে ডাকাতদল পালিয়ে যায়। ডাকাতদের হামলায় সাবেক ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন, শামিম হোসেন, এ্যাম্বুলেন্স চালকসহ আহত চারজনকে উদ্ধার করে এলাকাবাসী। পরে আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। খবর পেয়ে কয়েকজন পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও ডাকাত সদস্যদের আটকের তেমন কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি। ওই পুলিশ সদস্যরা শুধু ডাকাত কবলিত লোকজনের নাম-ঠিকানা নিয়ে চলে যায়।ডাকাতের হামলায় আহত মধ্যপাড়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য আনোয়ার হোসেন জানান, বড় ভাইয়ের লাশ নিয়ে সোমবার রাতে বাড়ি ফেরার পথে আমাদের লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্সটি ডাকাতের কবলে পড়ে। এসময় আমি এটা লাশের গাড়ি, লাশের গাড়ি বলে কেঁদে উঠলেও ডাকাতরা কোনো কথা শুনেনি। উল্টো আমাকে দা দিয়ে কুপ দেয় এবং টাকা লুট করে। অল্পের জন্য রক্ষা পাই। লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্স ছাড়াও মোটরসাইকেল, মাইক্রোবাসে ডাকাতি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এলেও আমাদের নাম-ঠিকানা নিয়ে চলে গেছে।

কালিয়াকৈর থানাধীন মৌচাক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) মোজাম্মেল হক জানান, শুনেছি একটা ঘটনা ঘটেছে। এটাকে ডাকাতি বলা যায় না, এটা দস্যুতা। এ ঘটনায় এখনো কেউ অভিযোগ করেনি। তবে লাশবাহী এ্যাম্বুলেন্স দস্যুতার কবলে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তিনি।

শেয়ার করুন